Home | জাতীয় | নূর চৌধুরীকে ফেরত চান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

নূর চৌধুরীকে ফেরত চান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত বঙ্গবন্ধুর আত্মস্বীকৃত খুনি নূর চৌধুরীকে ফেরত দিতে কানাডা সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

রোববার (১৩ আগস্ট) বাংলাদেশে নিযুক্ত কানাডার হাইকমিশনার বেনোইট পিয়েরে লারামি বিদায়ী সাক্ষাতে এলে প্রধানমন্ত্রী তার মাধ্যমে দেশটির সরকারের কাছে আহ্বান জানান।

পরে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন।
জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারীদের প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কানাডার হাইকমিশনারকে বলেন, একজন খুনি কানাডায় আছে। নূর চৌধুরী। তাকে ফেরত পাঠান।
জবাবে হাইকমিশনার প্রধানমন্ত্রীকে বলেন, আমি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে আপনার অনুরোধ পৌঁছে দেবো।

১৫ আগস্টের নির্মম হত্যাকাণ্ডে দেশের বাইরে থাকায় ছোট বোন শেখ রেহানা ছাড়া পরিবারের সব সদস্যকে হারানোর বিষয়টি উল্লেখ করেন শেখ হাসিনা।

সাক্ষাতকালে বাংলাদেশের আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনের বিষয়টি উঠে আসে।
আগামী সংসদ নির্বাচন প্রসঙ্গে হাইকমিশনার প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা সবার অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন দেখতে চাই।

স্বচ্ছ ভোট বাক্স চালুসহ সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন নিশ্চিতকরণে আওয়ামী লীগের বিভিন্ন উদ্যোগ ও অবদানের কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ৭৫-এর ১৫ আগস্ট জাতির পিতাকে হত্যার পর ২১ বছর এ দেশে গণতন্ত্র ছিল না। আমরাই মানুষের অধিকারকে প্রতিষ্ঠিত করেছি।

গত সংসদ নির্বাচনে বিএনপির অংশগ্রহণ না করা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমরা একটা যৌথ সরকার গঠন করার কথা বলেছিলাম। তখন বিএনপি যে মন্ত্রণালয় চাইতো দেওয়া হতো।
স্বাধীনতা সংগ্রাম ও যুদ্ধবিদ্ধস্ত জাতি গঠনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অবদানের কথা স্মরণ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, জাতির পিতা দেশকে স্বাধীন করেছিলেন। স্বাধীনতার পরে জাতি গঠনে বঙ্গবন্ধু আত্মনিয়োগ করেন।

বৈঠকে সন্ত্রাসবাদের বিষয় উঠলে প্রধানমন্ত্রী সন্ত্রাস ও জঙ্গি নির্মূলে সচেতনতা সৃষ্টির ওপর গুরুত্বারোপ করেন।

বাংলাদেশে দায়িত্বপালনকালে প্রধানমন্ত্রী এবং সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সহযোগিতা পেয়েছেন। এজন্য কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন কানাডার হাইকমিশনার।

বেনোইট পিয়েরে লারামি বাংলা ভাষা শেখার বিষয়টি জানিয়ে বলেন, মায়ের ভাষাকে সংরক্ষণ ও রক্ষা করা গুরুত্বপূর্ণ।

এ প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি রক্তের বিনিময়ে ভাষার অধিকার প্রতিষ্ঠা ও ২১ ফেব্রুয়ারিকে কেন্দ্র করে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালনের বিষয়টি উল্লেখ করেন।

আন্তর্জাতিক বিভিন্ন ইস্যুতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে প্রশংসা করেন তিনি।
প্রথম দিকে বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দেওয়া দেশগুলোর মধ্যে কানাডা একটি। বিষয়টিও উল্লেখ করে হাইকমিশনার বলেন, দুই দেশের সম্পর্ক ক্রমাগত আরও জোরদার হচ্ছে। বিশেষ করে অর্থনৈতিক সহযোগিতা।

স্বাস্থ্য ও শিক্ষা সেক্টরে বাংলাদেশের অগ্রগতির প্রশংসা করেন তিনি। বলেন, উন্নয়নের কাজে বাংলাদেশ সফল।

কানাডা উন্নয়ন সহযোগিতা অব্যাহত রাখবে এবং আরও জোরদার করবে বলে জানান বেনোইট পিয়েরে লারামি।

Comments

comments

About senior reporter

Check Also

‘আমার ভাই-বোনেরা কার কাছে থাকবে, কে তাদের খাওয়াবে’

চাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোল উপজেলার হাকরইল গ্রাম থেকে বুধবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে স্বামী-স্ত্রীর লাশ উদ্ধার করেছে …

Leave a Reply