করোনাযোদ্ধারা অ্যাম্বুলেন্স পান না, আর প্রতারকের জন্য দুই হেলিকপ্টার

227

বিএনপি’র কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু বলেছেন, করোনাকালে সম্মুখযোদ্ধা মৃত্যুপথযাত্রী ডা. মঈনের মতো ব্যক্তিরা একটি সরকারি অ্যাম্বুলেন্সও পায় না। অথচ রিজেন্টের প্রতারক সাহেদকে ধরে আনতে সরকার ব্যবহার করে দুই হেলিকপ্টার। তার জন্য সরকার লাখ লাখ টাকা ব্যয়ও করে। ড. মঈনদের ভাগ্যে জুটে ভাঙা অ্যাম্বুলেন্স। চিকিৎসা ছাড়াই হয় তার মৃত্যু। আর একজন প্রতারকের ভাগ্যে দুই হেলিকপ্টার।

গতকাল সকালে নাটোরের আলাইপুরের দলীয় কার্যালয়ে নাটোর জেলা বিএনপি আয়োজিত ভার্চুয়াল আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। জেলা বিএনপির আহবায়ক আমিনুল হকের সভাপতিত্বে এতে বক্তব্য দেন, জেলা বিএনপির সদস্য সচিব রহিম নেওয়াজ, ফরহাদ আলী দেওয়ান শাহীন, আসাদুজ্জামান আসাদ, এ হাই তালুকদার ডালিম, কাউন্সিলর সাজ্জাদ হোসেন সোহাগ প্রমুখ।

সাবেক এই ভূমি উপমন্ত্রী বলেন, করোনা মোকাবেলায় সরকারের ব্যর্থতায় দেশ মৃত্যু উপত্যকায় পরিণত হয়েছে। করোনা মোকাবিলায় সরকার সম্পূর্ণ ব্যর্থ। দেশের বর্তমান পরিস্থিতি থেকে মুক্তির জন্য মুক্তির একমাত্র পথ হচ্ছে গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রব্যবস্থা প্রতিষ্ঠা করা। যারা আজকে জোর করে ক্ষমতা দখল করে আছে, তাদেরকে সরিয়ে দিয়ে সত্যিকার অর্থে জনগণের শাসন প্রতিষ্ঠা করা। এজন্য আমাদের সকলকে একদিকে যেমন করোনা মোকাবিলা করতে হবে অন্যদিকে আমাদেরকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে জনগণের পাশে দাঁড়াতে হবে। জনগণকে তার অধিকারকে ফিরিয়ে দিতে হবে।

রুহুল কুদ্দুস দুলু আরো বলেন, করোনা মোকাবিলায় প্রতিটি ক্ষেত্রেই সরকার সমপূর্ণ ব্যর্থ হয়েছে। স্বাস্থ্যসেবা ভঙুর। সরকারের চিকিৎসাসেবায় মানুষের আস্থাও নেই। হাসপাতালের চিকিৎসাসেবাও একেবারেই অপ্রতুল ব্যবস্থা। চিকিৎসক, সাংবাদিক, আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীসহ সব সম্মুখযোদ্ধারা আজ আক্রান্ত হচ্ছেন।

সরকারের উচিত, সম্মুখযোদ্ধা সবাইকে প্রণোদনা দেওয়া। করোনাকে সরকার শুরু থেকেই গুরুত্বেও সঙ্গে নেয়নি। বরং এখন স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মধ্যে ঝগড়াঝাটি শুরু হয়েছে। চরম হুমকিতে করোনা আক্রান্তরা। করোনাকে ভয় পেলে চলবে না, আমাদের সবাইকে সতর্কতার সঙ্গে করোনা আক্রান্তদের পাশে দাঁড়াতে হবে।