‘পরিবারসহ আমার জীবন ঝুঁকিতে’ :ব্যারিস্টার সুমন

206

দেশের আদা’লত পাড়ায় এ সময়ের সবচেয়ে আলোচিত বিষয় ছিল ‘ফেনীর সোনাগাজীর নুসরাত হ’ত্যাকা’ন্ড’। ইতোমধ্যে এ মামলাটির রায় প্রকাশিত হয়েছে। নুসরাত হ’ত্যাকা’ন্ডের সাথে জড়িত ১৬ জন আ’সামির সর্বোচ্চ শা’স্তি মৃ’ত্যুদ’ন্ডের রায় দিয়েছেন মহামা’ন্য আ’দালত। হ’ত্যাকা’ণ্ডে জড়িতদের বি’রুদ্ধে আ’দালতের রায় এলেও এখন অপেক্ষা এই ঘটনায় নুসরাতের ভিডিও করে সামাজিক মাধ্যমে ভাই’রাল করা ওসি মোয়াজ্জেমের বি’রুদ্ধে মা’মলার রায়।বছরের এপ্রিল মাসে ওসি মোয়াজ্জেমের বি’রুদ্ধে মা’মলাটি দায়ের করেন ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন। রাষ্ট্রপক্ষ ও আ’সামিপক্ষের আইনজীবীদের যুক্তিত’র্ক উপস্থাপন শেষে আজ বুধবার (২০ নভেম্বর) বাংলাদেশ সাইবার ট্রা’ইব্যুনালের বিচারক মোহাম্মদ আস্ সামছ জগলুল হোসেন রা’য়ের জন্য দিন ধার্য করেছেন। আগামী ২৮ তারিখ মাম’লার রায় ঘোষণা করবেন মহা’মান্য আদা’লত।

রায়ের তারিখ নির্ধারণের রায়ের সময় আ’দালতে ব্যারিস্টার সুমন মাননীয় বিচারকের কাছে তাঁর জীবনের শঙ্কা প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, বাংলাদেশের সামাজিক বাস্তবতা বিবেচনায় একজন ওসির বি’রুদ্ধে মা’মলা করা অত্যন্ত বিপদ’জনক। ওসি মোয়াজ্জেমের বি’রুদ্ধে মাম’লা করায় আমি ও আমার পরিবার সারাজীবন ঝুঁকিতে থাকবো। ব্যারিস্টার সুমন আরো বলেন, এ মামলায় সর্বোচ্চ শা’স্তি নিশ্চিত হলে বাংলাদেশে থাকা ৪৮০ টি থা’না নিরাপদ হিসেবে গড়ে উঠবে বলে আমি বিশ্বাস করি।থানা ম্যানেজ করার দায়ে অভি’যুক্ত সবার মৃ’ত্যুদ’ন্ডের শা’স্তি হয়েছে অন্যদিকে যিনি ম্যানেজ হয়ে গেলেন তিনি কেন শা’স্তির বাহিরে থাকবেন। তাই, আমি ওসি মোয়াজ্জেমের দৃষ্টান্তমূলক শা’স্তি আশা করছি। এ ব্যাপারে পাবলিক ভয়েসকে ব্যারিস্টার সুমন বলেন, ‘ওসি মোয়াজ্জেমের বি’রুদ্ধে মা’মলায় করা শুরু থেকেই আমি নিরাপত্তা শ’ঙ্কায় ভুগছিলাম। আগামী ২৮ নভেম্বর এ মাম’লার রায় ঘোষণা করবেন মহা’মান্য আদা’লত।

রায়কে ঘিরে আমি আশং’কার মধ্যে আছি। আমার মনে হয় ওসি মোয়াজ্জেমের বি’রুদ্ধে মা’মলা নিয়ে আমার পরিবারসহ আমি সারা জীবন ঝুঁকির মধ্যে থাকবো। এজন্য আদাল’তকে আমার শঙ্কার কথা জানিয়েছি’। প্রসঙ্গ, নুসরাত হ’ত্যাকা’ন্ডের প্রাথমিক পর্যায়েই ধরাছোঁয়ার বাইরে ছিলেন আরেক অভিযুক্ত ব্যক্তি সোনাগাজী থানার সাবেক ওসি মোয়াজ্জেম।নুসরাতের ভি’ডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দিয়েছিলেন ওসি মোয়াজ্জেম। যা নিমিষেই ভাইরাল হয়ে পড়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ওসি মোয়াজ্জেমের করা ভি’ডিওটি ব্যারিস্টার সুমনের নজরে আসলে ব্যারিস্টার সুমন নিজেই বাদী হয়ে সাইবার ট্রা’ইব্যুনালে ওসি মোয়াজ্জেমের বি’রুদ্ধে মাম’লা করেন।পরবর্তীতে, ব্যারিস্টার সুমনের করা মা’মলায় অভিযুক্ত ওসি মোয়াজ্জেমকে আ’টক করে আই’নশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।মহা’মান্য আদা’লত এ মা’মলাটির সত্যতা যাচাইয়ের জন্য পিবিআইকে দায়িত্ব প্রদান করেন।

Loading...